টিপস এন্ড ট্রিকস

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম 2023 – ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম সম্পর্কে জানুনঃ সুপ্রিয় পাঠক/ পাঠিকা! দেশে সিলিন্ডার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি প্রতিনিয়তই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর ফলে গ্যাসের বিকল্প হিসেবে ইলেকট্রিক চুলার ব্যবহার বাড়ছে। তাই আজেকের এই ব্লগটিতে সেরা ইলেকট্রিক চুলার দাম, ব্যবহার ও বিদ্যুৎ খরচ সম্পর্কে লিখছি।

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম

বর্তমান সময়ে বহুল ব্যবহৃত ইলেকট্রিক চুলাগুলোর মধ্যে মিয়াকো ব্যান্ড অন্যতম। মিয়াকো ব্যান্ডের ইলেকট্রিক চুলার দাম কম ও টেকসই হওয়ায় ক্রেতার পছন্দের শীর্ষে অবস্থান করছে। সাধারণত ইলেকট্রিক চুলার দাম ইন্ডাকশন ও ইনফ্রারেড এর উপর নির্ভর করে। তাই ইলেকট্রিক চুলা ক্রয় করার পূর্বে জেনে নিতে হবে আপনি কোন ধরনের চুলা ক্রয় করতে চাচ্ছেন।

ইন্ডাকশন কুকার ও ইনফ্রারেড কুকারের মধ্যে পার্থক্য

প্রিয় পাঠক, আপনাদের অনেকে ইলেকট্রিক চুলা ক্রয় করার পূর্বে কনফিউশনে ভোগেন। আপনি ইন্ডাকশন চুলা ক্রয় করবেন না ইনফ্রারেড চুলা ক্রয় করবেন? আপনাদের কনফিউশন দূর করতে ইন্ডাকশন কুকার ও ইনফ্রারেড কুকারের মধ্যে পার্থক্যগুলো সম্পর্কে লিখছি। এর ফলে আপনি অতি সহজেই আপনার পছন্দের চুলা ক্রয় করতে পারবেন।

  • ইন্ডাকশন কুকারঃ

ইন্ডাকশন কুকার তাড়িৎ চুম্বক তরঙ্গ বিকরনের মাধ্যমে পাত্রকে গরম করতে সাহায্য করে। এর ফলে হাতে তাপ লাগার সম্ভাবনা নেই। এই ধরনের চুলা ব্যবহার করার ফলে তাপের অপচয় কম হয়। তবে এই ধরনের কুকারে শুধু মাত্র স্টিলের পাতিল দিয়ে রান্না করা যায়।

  • ইনফ্রারেড কুকারঃ

ইনফ্রারেড কুকার ইনফ্রারেড রশ্মি ব্যবহার করে পাত্রকে গরম করতে সাহয্য করে। এই ধরনের চুলা ব্যবহার করলে সুইচ বন্ধ করার পরও কয়েক মিনিট তাপ থাকে। এতে কারেন্ট চলে গেলেও কিছু সময় খাবার কুক হতে থাকে। ইনফ্রারেড কুকারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এতে যে কোন ধরনের পাতিলে রান্না করা যায়।

ইলেকট্রিক চুলা price in bangladesh

আজকের আর্টিকেলটিতে মূলত মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার চেষ্টা করেছি। প্রিয় পাঠক মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলা price in bangladesh নির্ভর করববে আপনি কোন ধরনের চুলা ক্রয় করছেন এর উপর। এই আর্টিকেলটিতে ইন্ডাকশন ও ইনফ্রারেড উভয় প্রকার চুলার দাম ও মডেল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে।

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ
মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ

Miyako Infrared Cooker DP-777

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ইলেকট্রিক চুলাগুলোর মধ্যে এই DP-777 মডেলের চুলাটি অন্যতম। প্রিয় পাঠক আপনাদের কেনার সুবিধার্থে এই চুলাটির কিছু বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হলেঃ

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম
মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম
  • বৈশিষ্ট্যঃ

১। এই চুলাটি ইনফ্রারেড চুলা। তাই আপনি যে কোন ধরনের পাতিল ব্যবহার করতে পারবেন।

২। এই চুলাটিতে ৪ ডিজিটের ডিসপ্লে সুবিধা রয়েছে।

৩। এতে টাইমার অপশন রয়েছে। এর ফলে আপনি অতি সহজেই নির্দিষ্ট সময় ধরে খাবার কুক করতে পারবেন। এমনকি নির্দিষ্ট সময় পর চুলা অফ হয়ে যাবে।

৪। এই ইলেকট্রিক চুলাটি আপনার খাবার অভার হিটিং থেকে প্রোটেকশন দিবে।

৫। DP-777 মডেলের চুলাটি দিয়ে আপনি সর্বোচ্চ ২০০০ ওয়াট পর্যন্ত বৈদ্যুতিক ক্ষমতা পাবেন।

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম অনেকটাই কম। প্রিয় পাঠক আপনি যদি এই মডেলে চুলাটি ক্রয় করতে চান তাহলে ৫৪০০ টাকার মত লাগবে। সেই সাথে এই চুলাটির সাথে ১ বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি সুবিধা পাবেন।

Miyako Touch Cooker ATC-20E3

প্রিয় পাঠক, আপনাদের যাদের টাচ ইলেকট্রিক কুকার পছন্দ, তাদের জন্য এই মডেলটি পারফেক্ট হবে। ATC-20E3 এই মডেলটি টাচ কুকার হওয়ায় এর চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই আপনাদের যদি এই মডেলটি পছন্দ হয় তাহলে নিচের বৈশিষ্ট্যগুলি এই মডেল সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা দিবে।

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Miyako Touch Cooker ATC 20E3
মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Miyako Touch Cooker ATC 20E3
  • বৈশিষ্ট্যঃ

১। এই মডেলটিতে ইনভার্টার ফাংশন রয়েছে। এর ফলে এই ইলেকট্রিক চুলাটি শক্তির অপচয় রোধ করে সম্পূর্ণ শক্তি রান্নার কাজে ব্যবহার করতে সাহায্য করবে।

২। সাধারনত ১০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড অথবা তার কিছু উপরের তাপমাত্রায় খাবার রান্না করা হয়। তবে এই ইলেকট্রিক চুলার মাধ্যমে আপনি সর্বোচ্চ ৮০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড পর্যন্ত তাপমাত্রায় রান্না করতে পারবেন।

৩। এই ইলেকট্রিক চুলার সবথেকে বড় সুবিধা হচ্ছে সব ধরনের পাতিলে রান্না করা যাবে।

৪। এই ইলেকট্রিক চুলাটিতে হাই টেম্পারেচার ডিউরাবল গ্লাস প্লেট ব্যবহার করা হয়েছে। এর ফলে অতি উচ্চ তাপমাত্রায় এর উপরের স্কিনের কোন ক্ষতি হবে না।

৫। ATC-20E3 মডেলটির মাধ্যমেও ২০০০ ওয়াটের শক্তি পাবেন। যা আপনার রান্নাকে দ্রুত করতে সাহায্য করবে।

প্রিয় পাঠক আপনি টাচ ইলেকট্রিক কুকার ক্রয় করতে চান তাহলে এই মডেলটি খুবই উপযোগী হবে। এই মডেলের কিছু আলাদা ফিচার রয়েছে যা অন্যান্য মডেল থেকে পার্থক্য করতে সাহায্য করবে। বর্তমানে এই মডেলের মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম হবে ৬৫৭০ টাকার মত। এই মডেলটিতেও ১ বছরের সার্বিস ওয়ারেন্টি পাবেন।

Infrared Cooker ATC-20T6 2000 W

প্রিয় পাঠক, আপনারা যারা কুলিং ফ্যানসহ ইলেকট্রিক কুকারের খোঁজছেন। তাদের জন্য ATC-20T6 এই মডেলটি খুবই উপযোগী হবে। এই একটি ইনফ্রারেড কুকার ফলে আপনি যে কোন হাড়ি পাতিলের মাধ্যমে রান্না করতে পারবেন। এছাড়াও এর কিছু অন্যান্য বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হলঃ

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Infrared Cooker ATC 20T6
মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Infrared Cooker ATC 20T6
  • বৈশিষ্ট্যঃ

১। এই ইলেকট্রিক চুলাটি তাপশক্তির ধারনার উপর নির্ভর করে প্রস্তুত করা হয়েছে। তাই আপনি আপনার পছন্দ মত দ্বারা রান্না সম্পন্ন করতে পারবেন।

২। এই ইলেকট্রিক চুলাতে ৩ ঘন্টা পর্যন্ত টাইমার অপশন চালু রাখার ব্যবস্থা রয়েছে।

৩। এছাড়াও আপনাদের নিরাপত্তার জন্য ভিতরে কুলিং ফ্যান সহ থার্মো প্রতিরোধী ক্রিস্টাল প্লেট রয়েছে।

৪। রান্না, বাষ্প, স্যুপ, ডিপ ফ্রাই ইত্যাদির রান্না করার জন্য পাওয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে 7টি অপশন পছন্দ করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি ম্যানুয়ালি তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে রান্না করতে পারবেন।

৫। বাসা বাড়ির ২২০ থেকে ২৪০ ভোল্টেজ বিদ্যুৎ মাধ্যমে রান্না করতে পারবেন। এর জন্য অতিরিক্ত ভোল্টেজের প্রয়োজন হবে না।

প্রিয় পাঠক সার্বিক দিক দিয়ে এই মডেলের ইলেকট্রিক চুলাটিও অনেক ভাল। এই মডেলের মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম অনেকটাই কম। আপনি যদি এই মডেলের চুলাটি ক্রয় করতে চান তাহলে ৬৫০০ টাকার মত লাগবে। এছাড়াও এই চুলার সাথে ১ বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি পাবেন।

Miyako Induction Cooker TC – R2

প্রিয় আপনার যারা মিয়াকো ইন্ডাকশন চুলা ক্রয় করতে ইচ্ছুক তাদের জন্য এই মডেলটি খুবই উপযোগী হবে। এই মডেলটিতে অন্যান্য কোম্পানি যেমনঃ ভিশন, ওয়ালটন, কিয়াম ইন্ডাকশন চুলার থেকে অনেক ভাল। এছাড়াও এই চুলাটিতে ফাস্ট কুকিং টেকনোলোজি ব্যবহার করা হয়েছে।

মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Miyako Induction Cooker TC R2
মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম Miyako Induction Cooker TC R2
  • বৈশিষ্ট্যঃ

১। এই ইলেকট্রিক চুলাটিতে টেকসই কাচের গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে। এর ফলে চুলাটি অনেক দিন দীর্ঘ স্থায়ী হবে।

২। এই চুলাতে কোন প্রকার ধোয়া হবে না এবং শক্তি সঞ্চয় হবে।

৩। সহজেই পরিস্কার করা যায়।

৪। এর সাথে 28 CM Induction Bottom Steel Pot ফ্রি দেওয়া হবে।

প্রিয় পাঠক আপনি যদি এই ইন্ডাকশন কুকারটি ক্রয় করেন তাহলে অনেক সুবিধা পাবেন। বর্তমানে এই মডেলের মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম ৫৪২০ টাকা। এছাড়াও এই চুলাতে ১ বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি সুবিধা তো থাকছেই।

ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ

বর্তমান সময়ে যে কোন ইলেকট্রনিক্স পন্য ক্রয় করার পূর্বে যে বিষয়টি ঘুরপাক খায় তা হচ্ছ বিদ্যুৎ খরচ। প্রিয় পাঠক ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ অনেকটাই আপনার উপর নির্ভর করবে। আপনি কত সময় চুলাটি ব্যবহার করবেন এর উপর বিদ্যুৎ খরচ হবে। সাধারনত ছোট ফ্যামিলির জন্য মাসে ৩৫০ থেকে সর্বোচ্চ ৪০০ টাকার মত বিদ্যুৎ বিল আসবে।

অন্যদিকে বড় ফ্যামিলির জন্য ইলেকট্রিক চুলার বিদ্যুৎ খরচ রান্নার উপর নির্ভর করবে। রান্না কম হলে বিদ্যুৎ খরচ কম হবে। রান্না বেশি হলে বিদ্যুৎ খরচ বেশি হবে। তবে ইলেকট্রিক চুলার সুবিধা সিলিন্ডার গ্যাসের থেকে বেশি।

ইলেকট্রিক চুলা ব্যবহার করার নিয়ম

ইলেকট্রিক চুলার ব্যবহার করার নিয়ম অনেক সহজ। প্রথমে চুলাতে বিদ্যুৎতের সংযোগ দিতে হবে। এরপর অন বাটনের মাধ্যমে চুলাটি অন করতে হবে। অন বাটন চাপ দেওয়ার পরও চুলাটি পুরোপুরি অন হবে না। ইলেকট্রিক চুলাটি সম্পূর্ণ অন করতে হলে এবার ফাংশন বাটনে চাপ দিতে হবে। ফাংশন বাটন চাপ দেওয়ার মাধ্যমে ইলেকট্রিক চুলা সম্পূর্ণ চালু হয়ে যাবে। এই ইলেকট্রিক চুলার সবোচ্চ হিট ২০০০ থেকে ২২০০ হয়ে থাকে। প্রিয় পাঠক আপনি চাইলে এই হিটের পরিমাণ কমিয়ে ২০০ পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন।

শেষকথাঃ

আজকের আর্টিকেলটিতে মিয়াকো ইলেকট্রিক চুলার দাম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। সিলিন্ডার গ্যাসের বিকল্প হিসেবে ইলেকট্রিক চুলার অবদান অপরিসীম। এছাড়াও ইলেকট্রিক চুলাতে সিলিন্ডার গ্যাসের মত কোন দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা নেই। প্রিয় পাঠক আপনি যদি কোন প্রকার জামেলা ছাড়াই রান্না করতে চান তাহলে ইলেকট্রিক চুলা ব্যবহার করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button